Categories
অনলাইন ইনকাম

BMW বিএমডব্লিউ এর ইতিহাস এবং এর যাত্রার উত্থানপতন

বিংশ শতাব্দীর শুরুর দিকে এয়ারক্রাফট এর ইঞ্জিন ম্যানুফ্যাকচারার হিসেবে যাত্রা শুরু করে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ অটোমোবাইল নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান BMW বিএমডব্লিউ। পরবর্তীতে ফ্ল্যাটে ইঞ্জিন মোটরসাইকেল ম্যানুফ্যাকচার এবং দুইটি বিশ্বযুদ্ধে ইঞ্জিন ও গাড়িচাপায় দিয়েছি কোম্পানিটি। বর্তমানে অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রি পাশাপাশি মটর স্পোর্টস সেগমেন্ট গাড়ি নির্মাণ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।একসময় জার্মান প্রতিদ্বন্দ্বী মার্সিডিস দ্বারা টেকওভার হয়ে যাওয়া বিএমডব্লিউ বর্তমানে ৬০ বিলিয়ন ডলারের বেশি মার্কেট নিয়ে বিশ্বের কার মেনুফেকচার এর মধ্যে অষ্টম স্থান এর মধ্যে আছে।

BMW বিএমডব্লিউ পূর্ণরূপ হচ্ছে বাইরিশে মটোরান ভার্কে এজি । ১৯১৩ সালের অক্টোবর মাসে কর্ডিয়াল ফ্রেডারিক রেপের হাত ধরে বাইরিশে মটোরান ভার্কে এজি নামে যাত্রা সুর করে BMW বিএমডব্লিউ ।ইঞ্জিনিয়ারিং পেশার প্রতি তাঁর ছিল অদম্য আগ্রহ এবং ১৯০৮ থেকে ১৯১১ সাল পর্যন্ত তিনি জাস্ট অটোমেটিক কোম্পানিতে চাকরি করেন। পরবর্তীতে এই চাকরিটি ছেড়ে দিয়ে ফ্লগার ডাছরেন্ট এর একটি ব্রাঞ্চ প্রধানের দায়িত্ব নেন। যখন ফ্লগার ডাছরেন্ট এএকেবারে বন্ধ হওয়ার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায়। তখনকার রেপ জুনিয়র হসপিটাল সকল ধরনের ম্যানুফ্যাকচারার করার উদ্দেশ্যে ২ লক্ষ রাইস মার্কস বিনিময়ে কোম্পানি কিনে নেয়।সে সময় আসন্ন প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কারণে এয়ারক্রাফট ইঞ্জিনে চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছিল ফলের ব্যবসা করার জন্য ইঞ্জিন ম্যানুফ্যাকচার করতে শুরু করেন।

তার দুটি ইঞ্জিনগুলোতে কিছু ইন্সট্রাকশন ত্রুটির কারণে সেগুলো ভাইব্রেট করত ফলে শেষ পর্যন্ত এই ব্যবসাটি সফল হয়নি।একই সময়ে গুষ্টাফ অটো নামে আরেকজন ইঞ্জিনিয়ারের ডিজাইন করা এয়ারক্রাফট ইঞ্জিন দিয়ে প্রেসার সফলভাবে ব্যবসা করতে থাকে।অর্থনৈতিক দুরবস্থার কারণে সে সময় কাররাফতের কোম্পানিটি প্রায় বন্ধ হওয়ার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায়।কিন্তু প্রসেন আর্মির কাছ থেকে 600 টাকার ইঞ্জিন তৈরির অর্ডার পেলে তার ব্যবসাটি আবারও ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ পায় ।তিনি ফ্রান্সের কোচ নামে একজন ব্যবসায়ী এবং তার ফিনান্সিয়াল বায়োকেমিস্ট্রি কিরনের সাথে পার্টনারশিপ করে একটি নতুন কোম্পানি BMW বিএমডব্লিউ নামে প্রতিষ্ঠা করেন

BMW বিএমডব্লিউ এর ইতিহাস!

১৯১৬ সালে এয়ারক্রাফট ইঞ্জিনে চাহিদা মেটাতে সরকারের অনুরোধে বিয়েমডাব্লিউকেও স্টপ অটো মেশিনের সাথে মার্চ করা হয়।হাজার ১৯১৭ সালে বিএমডাব্লিউর নাম পরিবর্তন করে বাইরিশে মটোরান ভার্কে নাম রাখা হয় যার সংক্ষেপে বিএমডব্লিউ সাথে পরিচিত হয়ে ওঠে। একটি বছর কোম্পানিটির সকল প্রোডাক্ট ব্যবহার করার জন্য প্রথমবারের মতো BMW বিএমডব্লিউ ইন্ট্রোডিউস করা হয়। ১৯১৮ সালে BMW বিএমডব্লিউ পাবলিক লিমিটেড কোম্পানির হিসেবে লিস্ট করা হয়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষে ১৯১৯ সালের ২৮ জুন জার্মানির প্রেসিডেন্ট চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সারেন্ডার করে। এই চুক্তির শর্তগুলো আরেকটি ছিল যে জার্মানি ট্রেনের ইঞ্জিন তৈরি করতে পারবে না। যার প্রেক্ষিতে বিএমডব্লিউ সফলতার যাত্রা থেমে যায়।

যুদ্ধপরবর্তী ওই সময়টাতে কোম্পানির রেলওয়ে ব্রিজ এবং ইঞ্জিন বানানো কাজ শুরু করে। বিএমডব্লিউ তৈরিকৃত রেলওয়ে এতটাই সফল যে ১৯২০ সালে বাড়িয়ালার এর একটি ব্রেক তৈরি কোম্পানি বিএমডব্লিউ মেজরিটি শেয়ার কিনে নেয় এবং কোম্পানিকে মিউনিখের রেলোকেট করে। ইউরোপের অন্যতম ধনী ব্যবসায়ী তিনি মেজরিটি শেয়ারহোল্ডার ছিলেন।বিএমডব্লিউ তাদের নিজস্ব ডিজাইনে দিয়ে ১৯২৭ সালে তাদের প্রথম লোগো ডিজাইন করে। সে বছর কোম্পানিটি তাদের বিএমডব্লিউ ৩০৩ মডেল টি লঞ্চ করে যা ডিজাইন থেকে শুরু করে ইঞ্জিন তৈরি পর্যন্ত সবই বিএমডব্লিউ করেছিল। একই বছর বিএমডব্লিউ তাদের বিশ্বখ্যাত কিডস ইন্ট্রোডিউস করে।

সারাবিশ্বেই গাড়ির মার্কেট ধীরে ধীরে ইলেকট্রিক ভেহিকেল দিকে যাচ্ছে। এর সাথে তাল মেলাতে ২০১০ সালে বিএমডব্লিউ অ্যাক্টিভ হাইব্রিড সেভেন নামে তাদের প্রথম হাইব্রিড গাড়ি রিলিজ করে। এরপর ২০১৩ সালের কামারেডি বিএমডব্লিউ i3 নামে তাদের প্রথম ইলেকট্রিক্যাল গাড়ী লাঞ্চ করে। স্ট্যাটিস্টিক তথ্যসূত্র ২০২০ সালে বিএমডব্লিউ গ্লোবাল মার্কেটের ২.৭% দখল করেছিল। বর্তমানে বিএমডব্লিউ গাড়ির সর্বোচ্চ আমদানিকারক চায়নার সুবাদে শুধুমাত্র এই জন্যই কোম্পানিটির 33.5% সেলস জেনারেট হয়।চায়নার পাশাপাশি বিএমডব্লিউ ইউএসএ থেকে ১৩ দশমিক ২ শতাংশ এবং জার্মানী থেকে ১২ দশমিক 3 শতাংশ জেনারেট করে থাকে।

স্ট্যাটিস্টিক আরেকটি তথ্যসূত্র ২০২০ সালে বিএমডব্লিউ গ্রুপের রেভিনিউ এর পরিমাণ ছিল ১১৭ বিলিয়ন ডলার এবং বর্তমানে ২০২১ সালে বিএমডব্লিউ মার্কেট রেভিনিউ পরিমাণ ৬০ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.